সমালোচনা ও প্রতিবাদের মুখে সৌদির সেই ‘হালাল নাইটক্লাব’ বন্ধ

নিউজ ডেস্ক : কট্টরপন্থী দেশ সৌদি আরবের জেদ্দায় চালু হতে যাওয়া ‘হালাল নাইটক্লাব’ উদ্বোধনের রাতেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

তীব্র আলোচনা-সমালোচনার মুখে সৌদি কর্তৃপক্ষ ওই নাইটক্লাবের অনুমোদন বাতিল করে। কর্তৃপক্ষের দাবি, এ ধরণের নাইটক্লাব সৌদির ধর্মীয় অনুশাসন ও আইনবর্হিভূত। স্থানীয় সময় গত ১৩ জুন, বৃহস্পতিবার রাতে ওই নাইটক্লাবটি উদ্বোধনের কথা ছিল।

এদিকে নাইটক্লাবটির উদ্বোধন করতে জেদ্দার পথে ছিলেন মার্কিন শিল্পী, গীতিকার নে ইয়ো। পথিমধ্যেই তিনি সৌদি কর্তৃপক্ষ নাইটক্লাবটি অনুমতি বাতিল করার খবরটি জানতে পারেন। এ বিষয়ে ইন্সটাগ্রামে দেওয়া এক পোস্টে ভক্তদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেন নে ইয়ো।

তিনি বলেন, জেদ্দার মানুষের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি, আমি পথেই ছিলাম। এরইমধ্যে জানতে পারলাম কর্তৃপক্ষ নাইটক্লাবটি বন্ধ করে দিয়েছে। আমি আশা করছি অন্যকোনো সময়ে আমাদের দেখা হবে। জেদ্দার হোয়াইটদের প্রতি আমার ভালোবাসা রইল।

নাইটক্লাবটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নে ইয়োর পারফরমেন্সে উপভোগ করতে টিকিটের দামেও বেশ ছাড় দেওয়া হয়েছিল। শ্রেণিভেদে টিকিটের দাম ছিল ৫০০ থেকে ১০০০ সৌদি রিয়াল। ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য অনুষ্ঠানটি উন্মুক্ত ছিল।

তবে সৌদিতে এই হালাল নাইটক্লাব খোলার খবর সামনে আসতেই সমালোচনায় ফেটে পড়ে নেটিজনেরা। অনেকে ফেসবুকসহ সামাজিক মাধ্যমে এর বিরুদ্ধে নানা পোস্ট দেন। একজন একটি বোরখা পরা নারীর ছবি পোস্ট করে বলেন, এই ক্লাবে কি বোরখা পরা পোল ডান্সারও থাকবেন? তবে বেশিরভাগ লোকজনের সমালোচনা ছিলো হালাল নাইটক্লাব নিয়ে। তাদের প্রশ্ন ছিলো, নাইটক্লাব আবার হালাল হয় কি করে?

সোশ্যাল মাধ্যম জুড়ে এতসব সমালোচনার পর অবশেষে নাইটক্লাব চালু করার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসলো সৌদি সরকার।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook
YouTube
YouTube
error: Content is protected !!