লন্ডনে অনুষ্ঠিত হলো রবীন্দ্র সংগীত সন্ধ্যা

ব্রিটিশ বাংলা নিউজ ডেস্ক, লন্ডন : ‘ইউরোপে রবীন্দ্রনাথ অরূপ তোমার বাণী’ শীর্ষক এই আয়োজনে লন্ডনে অনুষ্ঠিত হলো রবীন্দ্রসংগীতসন্ধ্যা।
গত রবিবার (২১ এপ্রিল) লন্ডনের ভারতীয় বিদ্যাভবন মিলনায়তনে যুক্তরাজ্যে বাংলা সংস্কৃতিচর্চায় নিয়োজিত সংগঠন আনন্দধারা আর্টস অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে।

ব্যতিক্রমী এই আয়োজনে রবীন্দ্রনাথের ইউরোপের বিভিন্ন দেশ সফর ও গানগুলো রচনার পরিপ্রেক্ষিতও তুলে ধরা হয়। এই আয়োজনে ইউরোপে রচিত রবীন্দ্রনাথের ১৫টি গান গেয়ে শোনান শিল্পীরা।

অনুষ্ঠানের গোড়াতেই ছিল গীতাঞ্জলি থেকে ‘তুমি কেমন করে গান করো হে গুণী, আমি অবাক হয়ে শুনি কেবল শুনি’ গানটির পাঠ ও তার ইংরেজি অনুবাদ, যে গীতাঞ্জলির পাণ্ডুলিপি লন্ডনে হারিয়ে গিয়েছিল, কিন্তু পরে পাওয়া গিয়েছিল বেইকার স্ট্রিট পাতাল রেলস্টেশনে।
এরপর ‘সুন্দর বটে তব অঙ্গদখানি’ দিয়ে শুরু হয় রবীন্দ্র সুরের মূর্ছনা।

১৯১২ সালের ২৬ জুন ইংরেজ সাহিত্যিক উইলিয়াম রদেনস্টাইনের লন্ডনের বাসায় রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন গানটি। এরপর গাওয়া হয় ‘অসীম ধন তো আছে’ এবং ‘তোমারই নাম বলবো’।

১৯১৩ সালে লন্ডনের অভিজাত এলাকা চেলসির চেইন ওয়াকের একটি বাড়িতে রবীন্দ্রনাথ এই গান দুটি লেখার আগেই তাঁর খ্যাতি ও প্রশংসা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছিল। কিন্তু কবির মন পড়ে রইল তাঁর প্রিয় শান্তিনিকেতনে। সেখানেই তিনি ফিরে যেতে চাইছিলেন। এমনই এক মনের অবস্থায় তিনি ওই বাড়িতেই রচনা করেন ‘এই মণিহার আমায় নাহি সাজে’।

‘ইউরোপে রবীন্দ্রনাথ অরূপ তোমার বাণী’ শীর্ষক রবীন্দ্রসংগীতসন্ধ্যার একটি দৃশ্য ‘ইউরোপে রবীন্দ্রনাথ অরূপ তোমার বাণী’ শীর্ষক রবীন্দ্রসংগীতসন্ধ্যার একটি দৃশ্য এভাবে কবির ইউরোপ সফরের গল্পের ফাঁকে ফাঁকে পরিবেশিত হয় ‘জীবন যখন ফুলের মতো’, ‘রয় যে কাঙাল শূন্য হাতে’, ‘নাই নাই ভয় হবে হবে যে জয়’ এবং ‘গানে গানে তব বন্ধন যাক টুটে’সহ মোট ১৫টি গান।

শেষ গান ছিল ‘অরূপ তোমার বাণী’। ১৯২৬ সালে ইউরোপ ভ্রমণের সময় যাগ্রেভে কবি গানটির খসড়া করেছিলেন। আর বুখারেস্টে দিয়েছিলেন সেটির চূড়ান্ত রূপ।

অনুষ্ঠানের মূল পর্বের আগে আনন্দধারা আর্টসের শিল্পীরা রবীন্দ্রনাথের বেশ কয়েকটি গান পরিবেশন করেন।

মূল পর্বে গান পরিবেশন করেন বাংলাদেশ থেকে আগত রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী শিলা মোমেন ও লন্ডনের শিল্পী ইমতিয়াজ আহমদ। তাঁদের সঙ্গে কোরাস করেন স্থানীয় রবীন্দ্রসংগীতশিল্পীরা। বেশ কয়েকটি গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন বাংলাদেশ থেকে আগত অতিথি শিল্পী সুদেষ্ণা স্বয়মপ্রভা ও লন্ডনের শিল্পী সুচিন্তিতা গাঙ্গুলি। উপস্থাপনা ও গল্পের বর্ণনা করেন উদয় শংকর দাশ ও তানজিনা নুর-ই সিদ্দিকী।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook
YouTube
error: Content is protected !!