ভাসান পানি আন্দোলনের জনক কমরেড বরুণ রায়ের স্মরণে

হাবিব সরোয়ার আজাদ : আজ শনিবার ( ৮ ডিসেম্বর) ভাসান পানি আন্দোলনের জনক প্রয়াত সাংসদ কমরেড প্রসুন কান্তি রায় ওরফে বরুণ রায়ের দশম মৃত্যুবার্ষিকী। ২০০৯ সালের আজকের এই দিনে হাওরের বিপ্লবী ও দেশের বাম রাজনীতির কিংবদন্তি নেতা কমরেড বরুণ রায় পরলোকগম করেন। তিনি মেহনতি মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি ও তাদের ন্যায্য অধিকারের দাবিতে আমৃত্যু লড়াই করে গেছেন।

সংস্কৃতি ও রাজনৈতিক আন্দোলনের কিংবদন্তী পুরুষ কমরেড প্রসূন কান্তি বরুণ রায়। তেভাগা আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন, ভাসানপানি আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধসহ কৃষক-শ্রমিক-মেহনতি জনতার মুক্তির সংগ্রামের প্রায় প্রতিটি আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহন করেছিলেন। বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামের কারণে তাঁকে জীবনের অধিকাংশ সময় কারাবরণ করতে হয়েছে। শুধু পাকিস্তান শাসনামলেই তিনি ১৪ বছর জেলে কাটিয়েছেন।

Like and follow us on Facebook for all future news.

কমরেড বরুণ রায় ১৯২২ সালের ১০ নভেম্বর তৎকালীন সিলেট জেলার সুনামগঞ্জ মহকুমার জামালগঞ্জে বেহেলী গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত বনেদী জমিদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা করুণাসিন্ধু রায়। করুণা সিন্ধু রায় একটি সামন্ত পরিবারে জন্ম নিলেও বেছে নিয়েছিলেন কৃষক প্রজার পক্ষের রাজনীতি। তিনি আসাম প্রাদেশিক পরিষদের এমএলএ ছিলেন। বরুণ রায় কুমিল্লা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া মোগরা হাইস্কুল থেকে ১৯৪২ সালে প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। বিদ্যালয়ে পড়াশোনাকালে তিনি প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের সাথে যুক্ত হন। আন্তরিকতা ও সাংগঠনিক দক্ষতার কারণে অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি নেতৃত্বের কাতারে চলে আসতে সক্ষম হন। ছাত্র ফেডারেশনের কর্মী হিসাবে বরুণ রায় কমিউনিস্ট পার্টির সং¯পর্শে আসেন। মাত্র ২০ বছর বয়সে ১৯৪২ সালে ভারতীয় কমিউনিস্ট পার্টির পূর্ণ সদস্য পদ লাভ করেন।

১৯৪২ সালে স্বাধীনতা দিবস পালন করার সময় তাঁকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠানো হয়। বরুণ রায় আইএ ভর্তি হন সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজে। এই কলেজ থেকে তিনি ১৯৪৭ সালে আইএ পাস করেন। ১৯৪৮ সালে সিলেট তিনি এমসি কলেজে বিএ প্রথম বর্ষে ভর্তি হন। এ সময় তিনি পার্টি ও ছাত্র ফেডারেশনের কাজে নিজেকে একজন সার্বক্ষণিক নিযুক্ত করেন। ১৯৪৯ সালে তিনি পুনরায় গ্রেফতার হন। ৫২’র ভাষা আন্দোলনেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এ সময় একটানা ১৯৫৩ সাল পর্যন্ত তিনি জেলে ছিলেন। এরপর মুক্তি পেলেও রাখা হয় নজরবন্দি করে। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে প্রেিদশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৫৮ সালে আইয়ুব খান সামরিক ফরমান জারি করলে বরুণ রায়কে আবারো গ্রেফতার করা হয়। এ সময় দীর্ঘ ৫ বছর তাকে কারাগারে থাকতে হয়। ১৯৬৮-৬৯ সালে গণআন্দোলনের সময় তিনি প্রকাশ্যে চলাফেরা থেকে বিরত থাকেন।

Subscribe our YouTube channel for all our future videos.

তিনি মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে ‘ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টি-ছাত্র ইউনিয়নের’ যৌথ গেরিলা বাহিনীর সংগঠকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮০ সালে জেনারেল জিয়াউর রহমানের আমলে তাঁকে আবার গ্রেফতার করা হয়। ১৯৮৬ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে (১৫ দলের নৌকার প্রার্থী হিসাবে) কমিউনিস্ট পার্টির প্রার্থী হিসাবে তিনি সুনামগঞ্জ-১ (তাহিরপুর, জামালগঞ্জ,ধর্মপাশা ও মধ্যনগর) আসন থেকে সংসদ সদস্য (এমপি) নির্বাচিত হন।

১৯৮৭ সালে এরশাদবিরোধী আন্দোলন চলাকালে তাঁকে আবার গ্রেফতার করে জেলে পাঠানো হয়। তিনি ১৯৯০ সালে বার্ধক্যের কারণে সক্রিয় রাজনীতি থেকে অবসর নেন। শেষ বয়সে তিনি মণি সিংহ-ফরহাদ স্মৃতি ট্রাস্টের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তাঁর স্ত্রী শীলা রায় সুনামগঞ্জের একজন খ্যাতনামা নারীনেত্রী এবং একমাত্র ছেলে সাগর রায় বর্তমানে আমেরিকা প্রবাসী।,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

কোয়ালিটি নিউজ ও ভিডিও পেতে সাবস্ক্রাইব করুন।

http://www.britishbanglanews.com/150k
https://www.facebook.com/Britishbanglanews/121k
https://www.facebook.com/Britishbanglanews/
youtube.com/c/BritishBanglaNews18k
youtube.com/c/BritishBanglaNews
error: Content is protected !!