কাদের মোল্লাকে ‘শহীদ’ বলায় দৈনিক সংগ্রামের সম্পাদকে পুলিশে সোপর্দ

ব্রিটিশ বাংলা নিউজ :

মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লাকে নিজেদের প্রতিবেদনে ‘শহীদ’ বলায় দৈনিক সংগ্রাম অফিস ভাঙচুর করে সম্পাদক আবুল আসাদকে পুলিশে সোপর্দ করেছে ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ নামের একটি সংগঠন।

Like and follow us on Facebook for all future news.

হাতিরঝিল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তমিজউদ্দিন বলেন: দৈনিক সংগ্রাম সম্পাদক আবুল আসাদকে পুলিশ হেফাজতে আনা হয়েছে, তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এর আগে শুক্রবার বিকেল থেকে সংগ্রাম অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভ জানায় ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’র নেতাকর্মীরা। তখন পত্রিকার কয়েকটি কপিতে আগুন দেয়া হয়।

Subscribe our YouTube channel for all our future videos.

‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’-এর সভাপতি আমিনুল ইসলাম বলেন: বিক্ষোভের একপর্যায়ে কয়েকজন নেতাকর্মী পত্রিকার কার্যালয়ে ঢুকে পড়ে। এরপর সেখানে জামায়াত-শিবিরের বেশকিছু বই এবং কাগজপত্র পেয়ে নেতাকর্মীরা উত্তেজিত হয়ে কার্যালয়ে ভাঙচুর চালায়।

ব্রিটেনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছে বরিস জনসনের টোরি পার্টি ! এ নিয়ে থাকছে বিস্তারিত। বিবিসি বাংলার আজকের বিশ্ব সংবাদে আরো থাকছে , কোন পথে যাচ্ছে ব্রিটেনের ভবিষৎ ? সৌজন্যে : BBC BANGLA

তবে দৈনিক সংগ্রামে কর্মরত সাংবাদিকরা জানান: বাইরে বিক্ষোভের একপর্যায়ে তারা জোর করে অফিসের ভেতরে ঢুকে কক্ষগুলোতে ভাঙচুর চালায়। এরপর সম্পাদক আবুল আসাদকে তার রুমের বাইরে এনে টিভি সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনে দাঁড় করিয়ে জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে বলা হয়। তখন তিনি ‘শহীদ’ শব্দটি ব্যবহারের জন্য দুঃখ প্রকাশ ও ক্ষমা চান।

আমিনুল ইসলাম বলেন: যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্লাকে ‘শহীদ’ বলার মাধ্যমে তারা দেশের শহীদদের অবমাননা করেছে। দেশের সার্বভৌমত্বে আঘাত করেছে। আমরা চাই সরকারিভাবে পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া হোক। আমরা পত্রিকার মেইন গেটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছি। সংগ্রাম পত্রিকার সম্পাদক আবুল আসাদকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন বলেন: যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্লাকে শহীদ বলার মাধ্যমে তারা দেশের শহীদদের অবমাননা করেছে। দেশের সার্বভৌমত্বে আঘাত করেছে। আমরা চাই সরকারিভাবে পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া হোক।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সভাপতি আহমেদ হাসনাইন বলেন: আমরা ভিন্নমত এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করি। তবে তা মুক্তিযুদ্ধকে অস্বীকার করে নয়। পৃথিবীর কোনো দেশে সংবিধানের মূল ভিত্তিসমূহকে অস্বীকার ও খাটো করাকে স্বাধীনতা বা ভিন্নমত বলা হয় না । মুক্তিযুদ্ধ হচ্ছে বাংলাদেশের অস্তিত্ব। এই অস্তিত্বকে অস্বীকার, অশ্রদ্ধা করেও এদেশে নাগরিক সুবিধা ভোগ এবং রাজনীতি করে বেড়ায় একশ্রেণীর লোক। আমরা মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি অবমাননাকর যেকোনো বিষয়ের বিরুদ্ধে। প্রচলিত আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই বলছি, প্রতিবাদ তো অনেক তো হলো, এবার কিছু প্রতিরোধ হোক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error

কোয়ালিটি নিউজ ও ভিডিও পেতে সাবস্ক্রাইব করুন।

http://www.britishbanglanews.com/150k
https://www.facebook.com/Britishbanglanews/121k
https://www.facebook.com/Britishbanglanews/
youtube.com/c/BritishBanglaNews18k
youtube.com/c/BritishBanglaNews
error: Content is protected !!