ইউরোপে অবৈধ বাংলাদেশির সংখ্যা কত ?এবং যে ভাবে আসছে ইউরোপে

নিউজ ডেস্ক ,লন্ডন : ইউরোপ অভিমুখে শরণার্থীদের যে স্রোত বইছে , তাতে অনেক বাংলাদেশিও রয়েছেন ৷ বিশেষ করে লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে ইটালি যাচ্ছেন হাজার হাজার বাংলাদেশি ৷ পরে সুযোগ মতো তারা ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ছেন ।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ থেকে ২০১৭ সালে ১৭ লাখ ৬৬ হাজার ১৮৬ জন ভূমধ্যসাগর পাড়ি দেন ৷ এভাবে সাগরপথে আসতে গিয়ে অন্তত ১৫ হাজার মানুষ প্রাণও হারান৷ কিন্তু তবুও ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টা থেমে নেই৷ প্রশ্ন হলো কবে থামবে? এবংবর্তমানে ইউরোপে এই অবৈধভাবে অবস্থানকারী বাংলাদেশিদের আসল সংখ্যা কত ?

ব্রিটেনের প্রভাবশালী দৈনিক ইনিডিপেনডেন্ট একটি সংবাদ প্রকাশ করে ৷ শিরোনাম ছিল ‘বাংলাদেশ ইজ নাও দ্য সিঙ্গেল বিগেস্ট কান্ট্রি অফ অরিজিন ফর রিফিউজিস অন বোটস অ্যাজ নিউ রুট টু ইউরোপ এমারজেস‘৷

সমুদ্রপথ পাড়ি দিয়ে বা অবৈধভাবে বাংলাদেশিরা যেমন ইউরোপে প্রবেশ করছেন, তেমনি দেশটিতে গিয়ে আশ্রয় চাওয়ার সংখ্যাও কম নয় ৷ ইউএনএইচসিআর-এর তথ্য ঘেটে জানা গেল, গত এক দশকে প্রায় এক লাখ বাংলাদেশি ইউরোপে আশ্রয় চেয়েছেন৷

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) তথ্য অনুযায়ী, ভূমধ্যসাগর দিয়ে যত মানুষ প্রবেশ করেছেন, সেই তালিকার শীর্ষ দশ দেশের নাগরিকদের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান এখন অষ্টম ৷

ইউরোপীয় কমিশনের পরিসংখ্যান দপ্তর ইউরোস্ট্যাট-এর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০০৮ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত এক লাখেরও বেশি বাংলাদেশি ইউরোপের দেশগুলোতে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছেন৷

তবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পশ্চিম ইউরোপ ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন অনুবিভাগের মহাপরিচালক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খাস্তগীর সংবাদমাধ্যমকে বলেন , ইউরোপে অবৈধ বাংলাদেশিদেরসঠিক হিসাব নেই। তারা একেক সময় একেক তথ্য জানায়।

বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম সম্প্রতি তরুণদের মধ্যে যে জরিপ করেছে, তাতে দেখা গেছে আরও ভালো জীবনযাপন এবং পেশার উন্নতির জন্য বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার ৮২ শতাংশ তরুণই নিজের দেশ ছেড়ে চলে যেতে চান ৷

এদিকে , ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোতে বসবাসরত এই প্রায় লক্ষাধিক বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাতে চায় ইউর দেশগুলো। এজন্য দুই বছর আগে বাংলাদেশের সঙ্গে স্ট্যান্ডার্ড অপারেশন প্রসিডিউর (এসওপি) স্বাক্ষর হয়েছে।

তবে নিজ নিজ দেশের আইনি জটিলতার কারণে খুব সহজেই তাদের ফেরত পাঠাতে পারছে না তারা ।

অন্যদিকে , বাংলাদেশের কর্মকর্তা বলছেন, বাংলাদেশ তার নাগরিকদের ফেরত নিতে প্রস্তুত। কিন্তু সংশ্লিষ্ট দেশগুলো আইনি প্রক্রিয়া শেষ করতে না পারায় বাংলাদেশিদের ফেরত পাঠাতে পারছে না।

জানাজায় , এসওপির আওতায় এখন পর্যন্ত মাত্র ১৯০ জন বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ১৬০ জন জার্মানি থেকে। বাকিরা গ্রিস ও অস্ট্রিয়া থেকে।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook
YouTube
YouTube
error: Content is protected !!